Monday, 22 February 2016

দারুন উত্তেজনার গেম Clash of Clans

  JIHAD KHAN       Monday, 22 February 2016
অনলাইন গেমিংএর মধ্যে প্রথম যে নামটি আসে তা হল ‘Clash of Clans’ গেম। গেমটি “Arcade এবং Action” প্লাটফর্মে তৈরী। গুগল প্লে থেকে গেমটি 100,000,00 বার ডাউনলোড হয়েছে। রেটিং 5 এর মধ্যে 4.6 ;
এটি অনলাইন গেম হলেও বেশি ডাটা খরচ হবেনা। সারাদিন খেললে 5 – 6 MB মত খরচ হবে।
গেমটির গেমপ্লে কিছুটা এমন যে, প্রথমত আপনাকে একটি এরিয়া দেয়া হবে। এরিয়ার মাঝেই আপনাকে আপনার দূর্গ, সেনা, প্রতিরোধ ব্যবস্থা ইত্যাদি নির্মান করতে হবে। বিষয়টা এরকম যে, আপনাকে যে এলাকাটুকু দেয়া হয়েছে সেটির রাজা আপনি যদিও আপনি গেমটিতে “Chief” এর ভূমিকায় খেলবেন। গেমটিতে প্রথম স্তরে আপনি যা কিনবেন আস্তে আস্তে আপনাকে সেগুলোর লেভেল আপগ্রেড করতে হবে, সেটা হতে পারে সৈনিক, দেয়াল, ঘর ইত্যাদি। এজন্য আপনাকে জমাতে হবে বা জিততে হবে স্বর্ন, এলিক্সেয়ার এবং ডার্ক এলিক্সেয়ার। আরেকটি সুবিধা আছে যা জমিয়ে আপনি যেকোন আপগ্রেডের প্রসেসকে ত্বরান্বিত করতে পারেন আর সেটি হচ্ছে ‘জেমস’।
এটি একটি অনলাইন গেম যাতে করে আপনি গ্লোবাল এবং লোকাল খেলোয়ার দের সাথে অথবা বিপক্ষে খেলতে পারেন । এই খেলাটিতে আপনার যেমন একটি এরিয়া আছে, তেমনি প্রতিটি প্লেয়ারের আলাদা আলাদা এরিয়া আছে। খেলাটিতে আপনাকে আপনার এরিয়া রক্ষা করার পাশাপাশি অন্য প্লেয়ারদের উপর আক্রমন করতে হবে। এবং এতে করে আপনি ‘পয়েন্ট’ পাবেন যে পয়েন্টের উপর ভিত্তি করে আপনি “জেমস” ফ্রিতে পেতে পারেন এবং এই পয়েন্টের উপর ভিত্তি করেই আপনার গ্লোবাল এবং লোকাল র্যাঙ্কিং করা হবে । তবে, আপনি কাউকে আক্রমন করে জিতলে যেমন পয়েন্ট পাচ্ছেন তেমনি যদি হেরে যান তবে আপনার পয়েন্ট মাইনাস হবে । আবার ধরুন, আপনার এরিয়া কেউ আক্রমন করলে সে যদি আপনার প্রতিরোধ ব্যবস্থার বিপক্ষে জয় লাভ করে তবে যেমন আপনার পয়েন্ট কাটা যাবে তেমনি সে যদি হেরে যায় তবে আপনার পয়েন্ট যোগ হবে। এখানে একটি বিষয়, আপনি অনলাইনে (গেম খেলা অবস্থায়) থাকা কালে আপনাকে কেউ আক্রমন করতে পারবে না । সে হিসেবে যদি আপনি সারাদিন আনলাইনে থাকেন তবে আপনাকে কেউ আক্রমন করতে পারবে না । আর, আপনি অফলাইনে থাকাকালীন অবস্থায় কেউ যদি আপনাকে আক্রমন করে তবে আপনার এরিয়া কত পার্সেন্ট ড্যামেজ করেছে তাঁর উপর ভিত্তি করে আপনাকে “শিল্ড” দেয়া হবে । অর্থাৎ, যদি আপনাকে ৮ ঘন্টার শিল্ড দেয়া হয় তবে আপনি অফলাইনে থাকলেও আপনাকে সেই ৮ ঘন্টার জন্য কেউ আক্রমন করতে পারবে না । কিন্তু, সেই ৮ ঘন্টার মধ্যে আপনি কাউকে আক্রমন করতে চাইলে আপনি আক্রমন করতে পারেন কিন্তু তখন শিল্ড নষ্ট হয়ে যাবে । আমি প্রথম দিকে বলেছিলাম যে আপনি প্রতিরোধ গড়ে তুলবেন, সেনা গড়ে তুলবেন । এখানে বলে রাখা ভালো যে, আপনি যে সেনা গড়বেন সেই সেনাগুলো কিন্তু আপনার এরিয়া কেউ আক্রমন করলে ডিফেন্ড করতে যাবেনা । এর জন্য আপনাকে “ক্লান” দূর্গ তৈরী করতে হবে এবং যেকোন একটি “নতুন ক্লান” খুলতে অথবা পুরোনো কোন ক্লানে যোগ দিতে হবে। আপনি চাইলে আপনার বন্ধুদের সাথে করে একটি “ক্লান” তৈরী করতে পারেন। ক্লান তৈরীর সুবিধা হচ্ছে, আপনি যদি ‘ক্লান’ নামক দূর্গটি তৈরী করেন তবে আপনি যে ক্লানের সাথে যুক্ত থাকবেন সেখানকার যেকোন মেম্বারএর কাছ থেকে আপনার ক্লানের লেভেল অনুযায়ী নির্দিষ্ট পরিমান সেনা নিয়ে আপনার ক্লান দূর্গে রাখতে পারবেন । এবং, কেউ আক্রমন করলে সেই ক্লান দূর্গে থাকা সেনারাই প্রতিপক্ষের আক্রমন ডিফেন্ড করার চেষ্টা করবে ।
অনেক রকম সৈনিক থাকবে আপনার যেগুলোর ক্ষমতা হবে বিভিন্ন রকম । এবং আপনাকে আপনার লেভেল বৃদ্ধি করতে করতে সেগুলোকে আনলক করে কিনতে হবে । শুধু তাই নয়, সেগুলোকে আপগ্রেড করতে হবে আস্তে আস্তে । উপরের ছবিতে দেখুন । এক একটি সৈনিকের নিচে বিভিন্ন মূল্য দেয়া আছে । অর্থাৎ, আমাকে প্রথম সৈনিকটি কেনার জন্য ৬০ এলিক্সেয়ার খরচ করতে হবে । প্রতিটি সৈনিকের আবার কাজও কিন্তু ভিন্ন ! যেমন, প্রথম সৈনিকটি তার ইচ্ছে মত যা সামনে পাবে তাই ভাঙ্গতে থাকবে । দ্বিতীয় সৈনিক তীরন্দাজ । নির্দিষ্ট দূরত্ব বজায় রেখে এরা সামনে যা পাবে তাই ভাংগবে । তৃতীয় সৈনিক কিন্তু প্রথমেই কিছু ভাঙ্গবেনা ! এরা প্রথমে দেখবে যে আপনি যাকে আক্রমন করছেন তার সোণার ভান্ডার, এলিক্সেয়ার আর ডার্ক এলিক্সেয়ার এর ভান্ডার আছে কিনা ! থাকলে, তারা প্রথমে সেগুলো লুট করবে এবং পরে ভাংচুর করবে । তেমনি করে চার নম্বর সৈনিক প্রথমে প্রতিরক্ষ ব্যবস্থা প্রথমে গুড়িয়ে দেবে । এরকম অদ্ভুত অদ্ভুত সৈনিকদের নিয়েই আপনাকে জয় করতে হবে দেশি-বিদেশি প্লেয়ারদের সাথে যুদ্ধ।
আমি বলেছিলাম যে অনলাইন ভিত্তিক এই গেমটিতে আপনাকে যুদ্ধ জয় অথবা অপর পক্ষের আক্রমন ডিফেন্ড করে পয়েন্ট বা ট্রফি জয় করতে হবে যা দিয়ে আপনার র্যাঙ্কিং হবে । দেখুন, উপরের ছবিটিতে টপ প্লেয়ারদের দেখা যাচ্ছে । ‘Dreamzrm’ ভাইয়ের লেভেল ১৩৩ এবং সারা বিশ্বের মধ্যে তিনিই প্রথমে আছেন ৪৪৯৯ পয়েন্ট জয় করে ! আপনাকে হয়ত বলতে ভুলে গেছি, গেমটি খেলতে প্রচুর সময় লাগে । তবে একটা সুবিধা যে একবারে খেলে শেষ করে দেয়ার মত গেমটি নয় । কেননা, ধরুন আপনি একটি ‘মর্টার’ কিনলেন প্রতিরোধ ব্যবস্থা ভালো করার জন্য । কিন্তু যখন আপনি কিনলেন তখন সেটা তৈরী হতে সময় নেবে ১২ ঘন্টার মত । তৈরী হয়ে গেলে সেই মর্টারটির লেভেল হচ্ছে ১ ! কিন্তু, সময়ের সাথে সাথে যেহেতু আপনার শত্রুপক্ষ অনেক বেশি শক্তিশালী হয়ে আপনাকে আক্রমন করবে তাই আপনাকে মর্টারের লেভেলও বৃদ্ধি করতে হবে । তখন আপনি যখন স্বর্ন খরচ করে সেই মর্টারটি আপগ্রেড করতে যাবেন তখন কিন্তু আর ১২ ঘন্টায় হবেনা ! তখন সময় লাগবে ১ দিন । বুঝুন তাহলে । গ্লোবাল র্যাঙ্কিং-এ থাকা ‘Allexceed’ ভাইয়ের সম্ভবত ৪ টি মর্টার রয়েছে ! আর সবগুলোই ১০ থেকে ১১ লেভেলের । তাহলে কত সময় ধরে তিনি এই গেমটি খেলছেন ?
তার এখানে যা কিছুই আছে মোটামুটি সর্বোচ্চ লেভেলের আছে । আর তিনি যদি দ্রুত খেলার জন্য কোন ডলার খরচ না করে থাকেন অর্থাৎ তিনি যদি স্বাভাবিক প্রক্রিয়ার এই গেমটি খেলে থাকেন তবে এই এরিয়া নির্মান করতে তার কমপক্ষে ১ বছরের মত সময় লেগেছে । এবার চলুন আমাদের লোকাল প্লেয়ারদের তালিকায় যাই ।
আমাদে লোকাল প্লেয়ারদের মাঝে Palash ভাই ১৯০ লেভেলে আছেন ৪৭০৩ পয়েন্ট/ট্রফি জয় করে।
কিছুটা হলেও হয়তো আন্দাজ করতে পারছেন, কতটা সময় নিয়ে খেলতে হয় এই ‘Clash of Clan’ গেমটি । ভাবছেন এত দিন ধরে এই একটি গেম কেন খেলবেন ? আপনি আপনার স্মার্টফোনে গেমটি ইন্সটল করে দেখুন এবং আপনি নিজেই যুদ্ধের উত্তেজনা আপনার মাঝে অনুভব করবেন । আর, যারা অ্যান্ড্রয়েডের অ্যাডভান্স ইউজার তাদের অনেক রকম কারনেই স্মার্টফোন ফ্ল্যাশ বা ফ্যাক্টোরি রিসেট করতে হয় । কিন্তু ভয় নেই, কেননা গেমটির প্রোগ্রেস ক্লাউড স্টোরেজেও জমা হয় । তাই, আপনি যত বার ইচ্ছে আনইন্সটল করতে পারেন, শুধু পরবর্তি সময় গেমটির মাধ্যমে আপনার অ্যাকাউন্টে ঢুকলেই আপনি আপনার পূর্বের প্রোগ্রেস ফিরে পাবেন। সব শেষে বলব, আপনি যদি স্মার্টফোন গেম পাগল হয়ে থাকেন তবে অবশ্যই Supercell এর নির্মিত এই ‘Clash of Clans’ গেমটি খেলে দেখবেন। 4.6 রেটিং এর এই গেমটি বিনামূল্যেই আপনি পেয়ে যাবেন গুগল প্লে স্টোরে।
logoblog

Thanks for reading দারুন উত্তেজনার গেম Clash of Clans

Previous
« Prev Post

No comments:

Post a Comment

আপনার একটি মন্তব্য একজন লেখক কে ভালো কিছু লিখার অনুপেরনা যোগাই তাই প্রতিটি পোষ্ট পড়ার পর নিজের মতামত যানাতে ভুলবেন না। তবে এমন কোন মন্তব্য করবেন না যাতে লেখকের মনে আঘাত করে!! ধন্যবাদ