📢 Sponsor post

ফ্রিতে Payoneer মাস্টারকার্ড নিন খুব সহজে

আসসালামু আলাইকুম। কিছুদিন আগে popads নামক একটি ওয়েবসাইট এর মাধ্যমে মাস্টারকার্ড অর্ডার করা যেত। কিন্তু সেই অফারটি বন্ধ হয়ে যাওয়ায় অনেকে...

এসইও কি? কেন করবেন এসইও?

এসইও কি? কেন করবেন এসইও? ওয়েব সাইট নিয়ে যারা নতুন কাজ করছেন। তাঁদের সবারই কাছে এসইও নিয়ে অনেক আগ্রহ। তাঁদের জন্যই মূলত সমাধান আইটির আজকের আর্টিকেল। আজ আমরা জানব এসইও কি? আর কেনই বা এসইও এতোটা গুরুত্বপূর্ণ।

এসইও কি?

এসইও কি? কেন করবেন এসইও?
এসইও (SEO) বলতে বুঝায় সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন (Search Engine Optimization)। অর্থাৎ, সার্চ ইঞ্জিনগুলোর (গুগল, ইয়াহু, বিং ইত্যাদি) জন্য ওয়েবসাইট / ব্লগসাইটকে উপযোগী করে তোলাকেই সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন বা এসইও বলে। আরও পরিষ্কারভাবে এসইও ব্যাপারটি বুঝতে হলে একটু উদাহরণ দিয়ে বুঝতে হবে। ধরুণ, আপনি গুগলে “স্বাস্থ্যবান হওয়ার টিপস” লিখে সার্চ করলেন। এখন গুগল সাধারণত আপনার সামনে স্বাস্থ্যবান হওয়ার টিপস পাওয়া যাবে এমন অনেক ওয়েবসাইট কিংবা ব্লগসাইটের লিংক দেখাবে। তবে সেটা ক্রম অনুযায়ী। অর্থাৎ কোন সাইটের লিংক আগে আবার কোনটা পরে। এভাবে হাজার হাজার ওয়েবসাইটের তালিকা আপনাকে দেখাবে গুগল সার্চ রেজাল্ট। কারণ, আপনি যে “স্বাস্থ্যবান হওয়ার টিপস” খুঁজছেন সে বিষয়ে হাজার হাজার সাইট আর্টিকেল আছে অনলাইনে। তাহলে স্বভাবতই প্রশ্ন আসে, কেন কোন সাইটের সন্ধান আগে আসলো আর কেনই বা অন্যটা পরের অবস্থানে আসলো? যে ওয়েবসাইট যতো সার্চ ইঞ্জিন ফ্রেন্ডলি তাকে সে অনুযায়ীই গুরুত্ব দেয় সার্চ ইঞ্জিন। তাই বলা যায়, সার্চ ইঞ্জিনে ভালো অবস্থানে আসতে এসইও সহায়ক করে সাইট গড়ে তোলাই হলো এসইও।

এসইও -এর প্রকারভেদ

ব্ল্যাকহ্যাট এসইও এবং হোয়াইটহ্যাট এসইও
এসইও বা সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন মূলত ২ প্রকার। যথাঃ ব্ল্যাকহ্যাট এসইও এবং হোয়াইটহ্যাট এসইও। আসুন সংক্ষেপে জেনে নেই ব্ল্যাকহ্যাট এসইও এবং হোয়াইটহ্যাট এসইও।

ব্ল্যাকহ্যাট এসইও

সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন মানেই সার্চ ইঞ্জিনে র‍্যাংক করানো। তবে সেটা সার্চ ইঞ্জিনের নির্দিষ্ট গাইডলাইন মেনে করতে হয়। কিন্তু ব্ল্যাকহ্যাট এসইও সার্চ ইঞ্জিনের গাইডলাইনের তোয়াক্কা না করে শুধু র‍্যাংক করানোর উদ্দেশ্যে কাজ করা হয়। তাই ব্ল্যাকহ্যাট এসইও পদ্ধতি সার্চ ইঞ্জিন স্বীকৃত নয়। সার্চ ইঞ্জিনকে ধোঁকা দিয়ে সাময়িক সময়ের জন্য সাইট র‍্যাংক করানো সম্ভব হলেও তা সাধারণত দীর্ঘস্থায়ী হয়না। ব্ল্যাকহ্যাট এসইও না করাই ভালো।

হোয়াইটহ্যাট এসইও

সার্চ ইঞ্জিন স্বীকৃত এসইও পদ্ধতি হলো হোয়াইটহ্যাট এসইও। সার্চ ইঞ্জিনের নির্দিষ্ট গাইডলাইন মেনে কাজ করা হয় হোয়াইট হ্যাট এসইও মেথডে। ফলে এই পদ্ধতিতে সাইট র‍্যাংক করানো সম্ভব হলে তা দীর্ঘস্থায়ী ও কার্যকর হয়ে থাকে। হোয়াইটহ্যাট এসইও -এর আবার ২টি অংশ।
  1. অনপেজ অপটিমাইজেশনঃ হোয়াইটহ্যাট এসইও বলতে একটি ওয়েবসাইটের অভ্যন্তরীন গঠন এসইও ফ্রেন্ডলি করা। অর্থাৎ সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন গাইডলাইন মেনে সাইটের বিভিন্ন দিক নিয়ে কাজ করা। যেমনঃ সাইট ম্যাপ, কি ওয়ার্ড, মেটা ট্যাগ, পোস্ট অপটিমাইজেশন, ইউআরএল স্ট্র্যাকচার ইত্যাদি।
  2. অফপেজ অপটিমাইজেশনঃ সাইটের বহির্ভূত এসইও সংক্রান্ত কাজগুলোকে অফপেজ অপটিমাইজেশন বলে। অফপেজ অপটিমেইজেশনের কাজগুলোর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলোঃ লিংক বিল্ডিং, সোশ্যাল বুকমার্কিং, গেস্ট ব্লগিং, ফোরাম পোস্টিং।

কেন করবেন এসইও?

কেন করবেন এসইও?
এসইও কি সেটা তো জানা হলো। এবার প্রশ্ন, কেন এসইও এতোটা গুরুত্বপূর্ণ। একটি ওয়েব সাইটের মূল প্রাণ হলো ভিজিটরস। ভিজিটরস বিহীন ওয়েবসাইটের কোন মূল্যই নেই। আপনি আপনার ব্লগ সাইটে হাজারটা মানসম্মত পোস্ট লিখুন না কেন, কিন্তু সেই পোস্টগুলোর পাঠকই যদি না থাকে তবে কি আপনার লেখা সেই পোস্টগুলোর কোন সার্থকতা থাকবে? অবশ্যই না! আর তাইতো প্রত্যেক ওয়েবমাস্টাররাই তাঁদের ওয়েবসাইটের জন্য ভিজিটর আনতে মরিয়া। কিন্তু কিভাবে আসবে সেই ভিজিটর? আমরা সবাই জানি, অনলাইনে কিছু খুঁজতেই আমরা চোখ বন্ধ করে গুগল, ইয়াহু, বিং এর মতো সার্চ ইঞ্জিনগুলোর সহায়তা নেই। আর তাই সার্চ ইঞ্জিন ভিজিটরসের সবচেয়ে বড় উৎস হিসেবে স্বীকৃত। কোটি কোটি অনলাইন ইউজার প্রতিনিয়ত সার্চ ইঞ্জিনগুলোর সহায়তা নিয়ে খুঁজছে তাঁদের কাঙ্ক্ষিত তথ্য। আর তাই সার্চ ইঞ্জিন সাইটে আপনার সাইটের তথ্য ভালো অবস্থানে র‍্যাংক করাতে পারলেই আপনিও পাবেন আপনার কাঙ্ক্ষিত ভিজিটরসদেরকে। কিন্তু আপনি চাইলেন আর সার্চ ইঞ্জিন আপনার সাইট আপনার কাঙ্ক্ষিত ভিজিটরসদের সামনে তুলে ধরলো এমন কিন্তু না! কারণ, আপনার মতো সব ওয়েব মাস্টাররাই চান তাঁর সাইট ভালো অবস্থানে থাকুক। আর তাইতো এই এসইও প্রতিযোগিতা। আমাদের মাঝে আরেকটি ভুল ধারণা,  আমরা মনে করি সার্চ ইঞ্জিনের গাইডলাইন মেনে এসইও করলাম আর সাইট ভালো অবস্থানে গেল। এটিও এক ধরণের ভুল ধারণা। কারণ, ওয়েব মাস্টাররা সবাই তাঁর সাইটকে এসইও ফ্রেন্ডলি করে গড়ে তোলে। কিন্তু এটাও একটা প্রতিযোগিতার মতো। যার এসইও যতো ভালো হবে তাঁকে সার্চ ইঞ্জিন তাঁর প্রাপ্য র‍্যাংকটাই দিবে। সবশেষে বলা যায়, সার্চ ইঞ্জিন থেকে কাঙ্ক্ষিত ভিজিটরস পেতেই এসইও এতোটা গুরুত্বপূর্ণ।