-->

Featured post

ফ্রিতে Payoneer মাস্টারকার্ড নিন খুব সহজে

আসসালামু আলাইকুম। কিছুদিন আগে popads নামক একটি ওয়েবসাইট এর মাধ্যমে মাস্টারকার্ড অর্ডার করা যেত। কিন্তু সেই অফারটি বন্ধ হয়ে যাওয়ায় অনেকে...

ব্যাখ্যাঃ যা ঘটে, ভালোর জন্যই ঘটে!


‘যা ঘটে, ভালোর জন্যই ঘটে!’ – এই প্রচলিত কথাটি প্রায়ই আমরা শুনে থাকি। অবশ্য এই একই কথাটি অনেকসময় কিছুটা অন্যভাবেও শোনা যায়। যেমনঃ আল্লাহ (সৃষ্টিকর্তা) যা করেন, মঙ্গলের জন্যই করেন! আচ্ছা, কথা যাই হোক! এই প্রচলিত প্রবাদ বাক্যটির গভীরে কখনো কি ভেবেছেন? আসলেই কি আপনার-আমার জীবনে যা ঘটে তা ভালোর জন্যই ঘটে। সেই ব্যাখ্যা বিশ্লেষণই থাকছে আজকের পোস্টে। ব্যাখ্যা বিশ্লেষণ ছাড়াও একটি ছোট্ট গল্প থেকেই আমরা খুব সহজেই উল্লেখিত কথাটির যথার্থতা প্রমাণ করতে পারিঃ


একদা এক গ্রামে অ্যালেক্স নামের এক বয়স্ক লোক বাস করত। বৃদ্ধ লোকটি একাই বসবাস করত তাঁর গ্রামের ছোট্ট কুড়েঘরে। কারণ তাঁর একমাত্র সন্তানও বিদেশে পড়ালেখার জন্য ছিল। গ্রামে সকলের কাছে অ্যালেক্স অনেক জনপ্রিয় এবং ভালোবাসার পাত্র ছিলেন। বৃদ্ধ অবস্থায় একা থাকার কারণে গ্রামের লোকজন প্রায়ই তাঁকে সমবেদনা জানাতেন। কিন্তু অ্যালেক্স ব্যথিত না হয়ে সবসময় বলতেন, “যা ঘটে, ভালোর জন্যই ঘটে”।’পড়াশুনা শেষে একদিন অ্যালেক্সের ছেলে গ্রামে তাঁর বাবার কাছে ফিরে আসে। এতে গ্রামের সবাই খুশি হয়ে তাঁকে অভিনন্দন জানান। এসময়ও, অ্যালেক্স আগের মতই বলেন, “যা ঘটে, ভালোর জন্যই ঘটে!”।হঠাত একদিন, অ্যালেক্সের ছেলে ঘোড়ার পিঠ থেকে পড়ে গিয়ে পা ভেঙ্গে ফেলে। এবারো পুরো গ্রামের লোকজন তাঁকে সান্ত্বনা দিতে আসে। কিন্ত অ্যালেক্সের বক্তব্য বরাবরের মত একই! যা ঘটে, ভালোর জন্যই ঘটে! এরকম পরিস্থিতেও এই কথা শুনে গ্রামের লোকজন আলোচনা করছিল যে এরকম খারাপ পরিস্থিতেও অ্যালেক্স কিভাবে এই কথা বলেন?এর কিছুদিন পরেই স্থানীয় রাজা তাঁর সেনা সদস্য সংগ্রহের জন্য গ্রামটি থেকে সকল সুস্থ-সবল যুবকদেরকে জোরপূর্বক নিয়োগ দেন। কারণ ঐ সময় সকলেই নিজের জীবনের ঝুঁকির কারণে আর্মিতে যোগ দিতে চাইত না। যা হোক, অ্যালেক্সের ছেলের পা ভাঙ্গা থাকায় সেবারে সেনা সদস্য নিয়োগ থেকে বেঁচে যায়। ফলে আবারো, গ্রামবাসী অ্যালেক্সের বাড়িতে আসে তাঁকে অভিনন্দন জানাতে এবং প্রতিত্তরে অ্যালেক্স বলেন, “যা ঘটে, ভালোর জন্যই ঘটে!”

যা ঘটে, ভালোর জন্যই ঘটে!


তো, উল্লেখিত গল্পটি থেকে কিন্ত আমরা খুব সহজেই বুঝতে পারি, আসলেই আমাদের সাথে যখন যা ঘটে তা ভালোর জন্যই ঘটে! ইতিবাচক চিন্তাধারাকে ভিত্তি করেই এই কথাটি আসলে বলা হয়ে থাকে। কোন কিছু ইতিবাচক হিসেবে নেওয়াটা আসলে একান্তই নিজের চিন্তাধারার বিষয়। আমরা মূলত আমাদের সাথে ঘটে যাওয়া নেতিবাচক যেকোন ঘটনাকে প্রথমেই নেতিবাচক হিসেবে নিয়ে ফেলি। কিন্তু একটু সুক্ষভাবে চিন্তা করলেই দেখবেন, যেকোন নেতিবাচকতার মাঝে লুকিয়ে রয়েছে ইতিবাচক কোন দিক! নেতিবাচকতা আপনাকে দিবে শুধুই দুঃখ, দুর্দশা, হতাশা। যেহেতু, নেতিবাচকতার কোন মানে নেই! তাই, সবকিছুকেই ইতিবাচক হিসেবে গ্রহণ করুন। সব খারাপের মাঝেই ভালো খুঁজুন! আর মনকে বলুন, যা ঘটে, ভালোর জন্যই ঘটে!

ধর্মীয় দৃষ্টিকোণ থেকেও এই প্রবাদ বাক্যটির পক্ষে শক্ত যুক্তি রয়েছে। প্রত্যেক ধর্মই বলে, সৃষ্টিকর্তা আপনাকে তাই দিবে যা আপনার প্রাপ্য। ধর্মের প্রতি আপনার বিশ্বাস থেকেও এ কথাই প্রমাণ হয় যে, সৃষ্টিকর্তা কখনও ভুল করেন না। তাই আপনার জন্য সৃষ্টিকর্তা যা লিখে রেখেছেন, সেটাই আপনার জন্য ঠিক। যেমন ধরুন, আপনার জীবনের দুঃখ দুর্দশা জর্জরিত সময়কে ইতিবাচক হিসেবে দেখলে সেখান থেকে ধৈর্যশীল হওয়ার শিক্ষা নিতে পারেন।

তাই সব কথার শেষ কথা হল, আলোচিত এই প্রবাদ বাক্যটি ইতিবাচক হিসেবে গ্রহণ করলে আসলেই এর যথার্থতা আছে। জীবনে যেটাই ঘটুক, সেটাকেই ইতিবাচক হিসেবে এগিয়ে নিতে সব সময় এই প্রবাদ বাক্যটির উপর বিশ্বাস রাখুন।